fbpx

সহজেই বানান একটি লো টেক প্ল্যান্টেড ট্যাংক !

অনেক ফিশ কিপারের মনের ভিতর একটি শখ থাকে যে নিজস্ব একটি প্ল্যান্টেড ট্যাংকের । কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে শুধুমাত্র মেইনটেইনেন্সের ভয়ে অথবা অত্যধিক খরচ অথবা কারেন্টের বিলের ভয়ে অনেক ফিশ কিপারই একটি প্ল্যান্টেড ট্যাংক বানানোর সাহস করে উঠতে পারেন না। কিন্তু বিস্ময়কর হলেও সত্য যে আপনি চাইলে খুব সহজেই অত্যন্ত কম খরচে একটি লো মেইনটেইনেন্স প্ল্যান্টেড ট্যাংক বানাতে পারবেন। যাতে লাগবে না কোন কার্বন ডাই অক্সাইড( Co2), তুলনামূলক কম আলো দরকার হয় এরকম কিছু গাছ ব্যাবহার করলে কম ওয়াটের আলো ব্যাবহার করলেই চলবে অর্থাৎ বাড়তি বিদ্যুৎ খরচের ভয়ও থাকবে না। চাইলে এমনকি ট্যাংকে কোন প্রকার মাটি ব্যাবহার ছাড়াই গড়ে তুলতে পারবেন আপনার প্ল্যান্টেড একুরিয়াম। অনেকগুলি লো মেইন্টেনেন্স গাছ আছে যেগুলির বালিতেই বেঁচে থাকতে পারে। অর্থাৎ এদের জন্য মাটি দরকার হয় না ! তবে হ্যাঁ উপরে কয়েক ইঞ্চির বালির লেয়ার দিয়ে তার নীচে মাটি দিয়ে প্ল্যান্টেড ট্যাংক তৈরি করা উত্তম !

ট্যাংক সাইজ : হবিতে যারা নতুন আসে তাঁরা অনেকেই ছোট ট্যাংক দিয়ে শুরু করতে চায়। কিন্তু বাস্তবতা হল একটি ছোট ট্যাঙ্কে নানা রকম ঝুট ঝামেলা বেশী থাকে। সে জন্য একটি মোটামুটি সাইজের ট্যাংক দিয়ে শুরু করা উত্তম। আপনি শুরু করতে পারেন একটি ২৪১২১২ সাইজের ট্যাংক দিয়ে। এরকম একটি ট্যাংকের দাম পড়বে ১৯০০ টাকার মত।

ফিল্টার : যে কোন ট্যাংকের জন্য সর্বাধিক গুরুত্বপুর্ন একটি জিনিস হল ফিল্টার। ফিল্টার বহু রকমের আছে তবে আপনার ২৪১২১২ সাইজের ট্যাংকের জন্য পারফেক্ট হবে একটি হব ফিল্টার। আপনি এই সাইজের জন্য ব্যাবহার করতে পারেন একটি ATMAN0400 হব ফিল্টার। যার দাম পড়বে ১৫০০ টাকা।

সাবস্ট্রেট : সাবস্ট্রেট হিসাবে আপনি ব্যাবহার করতে পারেন বাদামি কন্সট্রাকশনের বালু যা একুরিয়াম জগতে “সিলেট স্যান্ড” নামে সর্বাধিক পরিচিত। এছাড়া ব্যাবহার করতে পারেন জিরো সাইজড ক্রাশড স্টোন। চাইলে উপরে আধা ইঞ্জি বালুর লেয়ার দিয়ে নীচে ব্যাবহার করতে পারেন সাধারন বাগানের মাটি বা গার্ডেন সয়েল। এতে করে আপনি শুধুমাত্র বালুতে বেঁচে থাকে এমন কয়েকটি প্ল্যান্টে সীমাবদ্ধ না থেকে একসাথে লাগাতে পারবেন বহু ধরনের গাছ। যদি পুরো ট্যাঙ্কে শুধু বালু দিয়ে রাখতে চান তাহলে এই সাইজের ট্যাংকের জন্য আপনার দরকার হবে মোট ৮ কেজি বালু। আর আধা ইঞ্চির লেয়ার দিয়ে নীচে মাটি দিলে চাইলে লাগবে ৪ কেজি বালু। প্রতি কেজি সিলেট বালুর মূল্য ৫০ টাকা মাত্র।

লাইট : এইবার আসা যাক প্ল্যান্টেড একুরিয়ামের সর্বাপেক্ষা গুরত্বপুর্ন অংশ অর্থাৎ লাইটিং এ। প্ল্যান্টের প্রোপার গ্রোথের জন্য প্রপার লাইটিং এর কোন বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে আপনার ট্যাংকের তুলনায় লাইটিং যেন খুব বেশী না হয়ে যায়। তাহলে আপনার ট্যাঙ্কে অ্যালগি আস্তানা গাড়বে। একটি ২৪১২১২ সাইজের ট্যাংকের প্রতি গ্যালন পানির জন্য ২-৩ ওয়াটের লাইট ব্যাবহার করতে হবে। এই সাইজের ট্যাংকের জন্য পারফেক্ট যে যেই LED লাইটটি হবে সেটির দাম পড়বে ১৬০০ টাকা মাত্র।

প্ল্যান্টস বা গাছ : যদি আপনি সাবস্ট্রেট হিসাবে শুধু বালি ইউজ করেন তাহলে Cabomba, Hornwort, Egeria Densa, Jungle Val, Guppy grass, micra, Amazon sword, Oriental sword, hydrilla, Pennywort, Apongaton Ulvaceous, Limnophila Aquatica ইত্যাদি প্ল্যান্টস আপনার স্বপ্নের প্ল্যান্টেড ট্যাংকে লাগাতে পারেন। আর যদি আধা ইঞ্চি বালির লেয়ার দিয়ে নীচে মাটি ব্যাবহার করেন তাহলে আরো বহু জাতের গাছই লাগাতে পারবেন। তবে এই ক্ষেত্রে উল্লেখ্য যে ঐ সমস্ত গাছে কার্বন ডাই অক্সাইড সরবরাহ করতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে কার্বন ডাই অক্সাইড ছাড়া ট্যাংক করতে চাইলে শুধু বালুতে যে গাছগুলি হয় সেগুলিতে স্থির থাকতে পারেন।

আপাতত শুরু করতে ৪ পট আনুবিয়াস বা ফার্ন দিয়ে শুরু করতে পারেন। প্রতি পটের দাম পড়বে ৪৫০ টাকা করে(ছোট), এবং ৫৫০ টাকা (বড়)

মাছ বা লাইভ স্টক : ট্যাংক তো হল এবার আসা যাক কি মাছ রাখবেন সেটার ব্যাপারে। ২৪১২১২ সাইজের ট্যাংকের জন্য সবচে ভাল হবে টেট্রা জাতীয় মাছ। আপনি ১০-১২টি নিওন বা কার্ডিনাল টেট্রা মাছ এতে রাখতে পারেন। মাছগুলি গাছের ফাঁকে ফাঁকে ঘুরে বেড়াবে আশা করা যায় দেখতে বেশ ভালোই লাগবে। প্রতি জোড়া নিওন টেট্রার দাম পড়বে ১৫০ টাকা করে।

ডেকোরেশন : প্ল্যান্টেড ট্যাংকে ডেকোরেশন করতে গেলে অতি অবশ্যই এক বা একাধিক বগউড আপনাকে রাখতেই হবে। অনেক গাছ বগউডের সাথে সরাসরি লাগিয়ে দেওয়া যায়। এছাড়া ব্যাবহার করতে পারেন আপনার পছন্দের যে কোন কিছু তবে সেটিতে যেন কোন প্রকার ধারালো অংশ বা কিনারা না থাকে। এই সাইজের ট্যাঙ্কে আপনি দুইটি বগউড ব্যাবহার করতে পারেন। প্রতিটি বগউডের দাম পড়বে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে।

ব্যাস এভাবেই আপনার একুরিয়াম হবির প্রথম প্ল্যান্টেড ট্যাংকটি তৈরি করে ফেলতে পারেন। এতে আপনার খরচও খুব বেশী হবে না বরং এই ট্যাংক থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করে আপনি ভবিষ্যতে বড় ট্যাংকের দিকে যেতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *